নোয়াখালী প্রতিনিধি :                                          নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলায় দশম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে, 

রবিবার (২৭জুন) সোনাইমুড়ী বাজারের একটি আবাসিক হোটেলে এ ঘটনা ঘটে, কিশোরীর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হওয়ায় তাকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভক্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত যুবক শরিফুল ইসলাম নূরসহ(২৭) দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ, গ্রেফতারকৃত শরিফুল ইসলাম নূর চাটখীল উপজেলার নোয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা, অপরজন হোটেলের ম‍্যানেজার।

রবিবার বেলা সাড়ে এগারোটার দিকে স্বামী – স্ত্রী পরিচয়ে শরিফুল ও ঐ কিশোরী সোনাইমুড়ী বাজারের একটি আবাসিক হোটেলে ওঠেন, রাত সাড়ে ৯টার দিকে ওই কিশোরীকে রক্তাক্ত অবস্থায় সোনাইমুড়ী হাসপাতালে ভর্তি করে শরিফুল নিজেই, এরপর তিনি পালিয়ে যান। বিষয়টি স্হানীয় থানা পুলিশ জানতে পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করেন, পরে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। তার শরীর থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় সোনাইমুড়ী থানার ওসি ও একজন এসআই দু’ব‍্যাগ রক্ত দেন, প্রচুর রক্তক্ষরণের কারণে এই পযর্ন্ত তিন ব‍্যাগ রক্ত দিতে হয়েছে বলে জানিয়েছেন নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সৈয়দ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন। সোনাইমুড়ী থানার ওসি মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন -” সোমবার ভোরে সোনাইমুড়ীর নদনা এলাকায় অভিযান চালিয়ে শরিফুল ইসলাম নূরকে আটক করা হয়েছে, তার আগে রাতে হোটেল ম‍্যানাজারকে আটক করা হয়েছে।

ঘটনায় স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে একটি ধর্ষণ ও অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন।

dailybijoy.net / আকরাম আলী