নিজস্ব প্রতিবেদক :

হেফাজতে ইসলামের আমির জুনায়েদ বাবু নগরী বলেছেন ব‍্যক্তিগত প্রয়োজনে নয়, জাতীয় স্বার্থে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সঙ্গে বৈঠক করেছি। 

                               মঙ্গলবার ( ৬জুলাই) রাজধানীর খিলগাঁও মাখজানুল উলুম মাদ্রাসায় অনুষ্ঠিত হেফাজতের এক বৈঠকে সংগঠনটির আমির এসব কথা বলেছেন বলে বৈঠক সূত্রে জানা যায়।

হেফাজতে ইসলামের আমির বৈঠকে বলেছেন -” সারাদেশে অসংখ্য নিরহ আলেম ওলামাকে গ্রেফতার করা হয়েছে, তারা কারাগারে মানবেতর জীবনযাপন করছেন, বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে এ বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়েছে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হেফাজতের দাবীদাওয়া মেনে নেয়ার মৌখিক আশ্বাস দিয়েছেন।                                                  গতকাল সোমবার চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায়  পৌঁছেন বাবু নগরী,  রাতে কয়েকজন সহকর্মীদের নিয়ে ধানমন্ডিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায় যান তিনি।  প্রায় দু’ঘন্টা পর তারা মন্ত্রীর বাসা থেকে বের হন, তখন উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীরা কথা বলার চেষ্টা করেন- কিন্তু হেফাজত নেতারা কোনো কথা বলেননি।

আজ হেফাজত নেতাদের এক বৈঠকে গতকাল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে ব‍্যাখ‍্যা দেন হেফাজত আমির। তিনি বলেন -” দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ কওমি মাদ্রাসা গুলো খুলে দেয়া, আলেম ওলামাদের মিথ্যা মামলা প্রত‍্যাহার ও মুক্তি, গ্রেফতার – হয়রানি বন্ধসহ বেশকিছু দাবী জানিয়েছি আমরা, আশা করছি সরকার আমাদের দাবীগুলো মেনে আলেম ওলামাদের মুক্তি দেবে”।

হেফাজতের বিরুদ্ধে কথিত যে সহিংসতার অভিযোগ করা হচ্ছে – তা সঠিক নয় দাবী করে বাবু নগরী বলেন -” হেফাজতের কোন কর্মী   সহিংসতামূলক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত ছিলো না, কিছু দুষ্কৃতকারী হেফাজতের বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে পরিস্থিতি ঘোলাটের চেষ্টা করেছে, তাদের খুঁজে বের করা দরকার, নিরহ আলেম ওলামাদের এসবের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই”।

এ বছরের মার্চে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা আগমনের বিরোধিতাকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভ ও সহিংস ঘটনার পর হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেয় সরকার, গ্রেফতার করা হয় তাদের প্রায় অর্ধশত নেতাকে, মামলা আর গ্রেফতার আতঙ্কের মধ্যে হেফাজতের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা করে, পরে গ্রেফতারকৃত নেতাদের বাদ দিয়ে নতুন কমিটি করা হয়।।