ডেস্ক নিউজ

দুই দশকের সহিংস লড়াইয়ের পর আফগানিস্থান আবার তালেবানের নিয়ন্ত্রণে। যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রাসনে ২০০১ সালে ক্ষমতা হারিয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়া তালেবান রোববার বিনা রক্তপাতে কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয়। গোটা আফগানিস্তান এখন তাদের দখলে, কাবুলে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের নিয়ন্ত্রণও নিয়েছে তারা।  এমন পরিস্থিতিতে যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশ কিছু দেশ আফগানিস্তান থেকে তাদের লোকদের সরিয়ে নিচ্ছে, তবে এ ক্ষেত্রে ভিন্ন ইঙ্গিত দিয়েছে চীন ও রাশিয়া, কাবুলে থাকা তাদের  দূতাবাস তারা বন্ধ করছেন না, তালেবানের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক করার ঘোষণাও দিয়েছেন চীন( খবর এএফপির) চীন সোমবার বলেছে -তারা তালেবানের সাথে” বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক “গড়তে আগ্রহী। তালেবান আফগানিস্তান দখল নেওয়ার পর বেইজিং এমন আগ্রহ প্রকাশ করল।  চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনিং  সাংবাদিকদের বলেন,  নিজেদের ভবিষ্যত স্বাধীনভাবে নির্ধারণে আফগান জনগণের অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল এবং বেইজিং আফগানিস্তানের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ এবং সহযোগিতামূলক সম্পর্ক উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে আগ্রহী।

গত জুলাইয়ে চীন সফর করে তালেবানের প্রতিনিধিরা, সে সময় তারা  চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আমলে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল, সেনা প্রত্যাহার করতে আফগান- তালেবানের সঙ্গে চুক্তি সই হয় ওই সময়,  তবে জো বাইডেন ক্ষমতায় এসে সেপ্টেম্বরের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার পুরোপুরি শেষ করার সময়সীমা নির্ধারণ করেন।  সেনা প্রত্যাহার শুরু হয়েছে এরই মধ্যেই,  এমন পরিস্থিতিতে তালেবান যোদ্ধারা  আফগানিস্তানের বিভিন্ন এলাকায় নিয়ন্ত্রণ নিতে শুরু করে।

ডেইলি বিজয়.নেট//