উদ্বোধন হলো দেশের প্রথমবারের মত নির্মিত ঢাকা-মাওয়া ও পাঁচচর ভাংগা এক্সপ্রেসওয়ে

0

এম এম রহমান মুন্সীগঞ্জ: গনভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রকল্পটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করে জনসাধারনের জন্য উন্মুক্ত করেন। ফলে রাজধানীর ঢাকার সাথে দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের সড়ক যোগাযোগে আসলো যুগান্তকারী পরিবর্তন। সুবিধা পাবে প্রায় সাড়ে ৪ কোটিরও বেশী মানুষ। সকালে অনুসন্ধানে গিয়ে দেখা যায়, রাজধানীর মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার দিয়ে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে যেতে যানবাহনগুলো পোস্তগোলা সেতু পার হয়ে ছুটে চলছে বাঁধাহীন গতিতে। এ অংশে জুরাইন রেলক্রসিং এর উপর ওভারপাস থাকায় তীব্র যানজটে পরতে হবে না দূরপাল্লার যানবাহনগুলোকে। মহা সড়কটি ধরে যতোই সামনে যাওয়া যায় ততোই যোগ হচ্ছে নতুন অভিজ্ঞতা। দৃষ্টি নন্দন চারলেনের সড়ক, যানজটতো নেই বরং দ্রæত গতিতে চলছে দূরপাল্লার গাড়ী। আর স্বল্প গতির যানবাহনের জন্য দু”পাশে আলাদা দুটি লেন থাকায় এলাকাবাসী নিরাপদে সড়কটি ব্যবহার করতে পারছে। পোস্তগোলার পর আরেকটি গেট হয়ে ইকুরিয়া বাবু বাজার লিংক সড়ক মাওয়া এক্সপ্রেসওয়েতে গিয়ে যুক্ত হয়েছে পদ্মাসেতুর সংযোগ সড়ক।
প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, ৫৫ কিলোমিটার এই মহা সড়কটিতে রয়েছে ৫টি ফ্লাইওভার, ৪টি রেলওয়ে ওভারপাস, ধলেশ্বরী, আড়িয়াল খাঁ ও কুমার ব্রিজসহ ২৯টি বড় সেতু। ১৯ টি আন্ডার পাস আর ৫৪ টি কালভার্ট। প্রকল্পের মোট ব্যয় হয়েছে প্রায় ১১ হাজার কোটি টাকা। সড়কটির আয়ুকাল ধরা হয়েছে ২০ বছর।
অনুসন্ধানকালে গাড়ী চালকসহ স্থানীয়রা জানান, আগে দ্রæত গতির বাস করতো তখন গাড়ী চালাতে চালকরা ভয় পেতো। অনেক দূর্ঘটনা আর যানজট লেগেই থাকতো। এখন লেন আলাদা। এক্সিডেন্ট হওয়ার ভয় থাকবে না আমরা নির্ভয়ে গাড়ী চালাতে পারবো। এলাকাগুলো এখন শিল্প নগরীতে পরিনত হয়েছে। মহা সড়ক আসলে মনে হয় উন্নত কোন দেশে আছি। এটা উন্নয়নের একটা মাইল ফলক বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।
ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গন ভবন থেকে উদ্বোধন করা হলো দেশের সর্ব প্রথম চার লেনের এক্সপ্রেস সড়কট। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বেলা ১১ টা ১০ মিনিটে প্রায় ১১ হাজার কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত এই সড়কটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের ঘোষণা দেন। মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষ থেকে সরাসরি প্রধান মন্ত্রীর এই উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যুক্ত থাকে জেলা প্রশাসক মনিরুজ্জামান তালুকদার, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ, মুন্সীগঞ্জ তিন ও দুই আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. মৃনাল কান্তি দাস ও সাগুফতা ইয়াছমিন এমিলিসহ সুধিজন। ফোর লেনের এক্সপ্রেসওয়ে ছাড়াও দুই লেনের সার্ভিস লেনের সড়কটির পুরো সুবিধা ভোগ করবেন মুন্সীগঞ্জ জেলার তিনটি উপজেলাবাসী।